শনিবার, জানুয়ারি ২৮, ২০২৩
spot_img
Homeঅর্থনীতিবাজারে উঠেছে শীতের সবজি, দাম বেশ চড়া

বাজারে উঠেছে শীতের সবজি, দাম বেশ চড়া

শীত আসতে এখনও প্রায় দুই মাস বাকি। তবে বাজারে মিলছে নানান ধরনের শীতের সবজি। শীতের এসব সবজি বেশ চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে।

এ নিয়ে ক্রেতাদের অভিযোগ থাকলেও বিক্রেতারা বলছেন ভিন্ন কথা। তারা বলছেন, বাজারে শীতের সবজির সরবরাহ অনেক কম। সব মিলিয়ে ক্রেতা পর্যন্ত পৌঁছাতে বাড়তি খরচ লাগছে। তাই বাড়তি দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে। তবে আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যেই দাম অনেকটা কমে যেতে পারে।

শনিবার (১৫ অক্টোবর) রাজধানীর কারওয়ান বাজার, বঙ্গবাজার ও রামপুরা কাঁচাবাজার ঘুরে এসব চিত্র দেখা গেছে।

বাজারে প্রতি কেজি শিম, শালগম ও নতুন আলু ১২০ থেকে ১৪০ টাকা ও ফুলকপি ও বাঁধাকপি ৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। মানভেদে বেগুন, গাজর, মুলা ও বরবটি কেজিতে ৮০ থেকে ১০০ টাকায়। এ ছাড়াও কাঁকরোল, চিচিঙ্গা, শসা, ঝিঙে, ঢ্যাঁড়স ও পটোল ৬০ থেকে ৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে বিক্রেতা লাভলু ইসলাম বলেন, শীত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সবজির সরবরাহ বাড়বে। তখন দাম কমে যাবে

এদিকে সপ্তাহ ব্যবধানে বেড়েছে মাছের দামও। ছোট আকারের রুই কেজি ৩২০ টাকায়, যা গত সপ্তাহেও বিক্রি হয়েছে ২৮০ থেকে ২৯০ টাকায়। পাবদা মাছ আকারভেদে ৪৫০ থেকে ৬০০ টাকা, বেলে মাছ ৭৫০ টাকা, ট্যাংরা মাছ ৭০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

চিংড়ি ৪০০ থেকে ১ হাজার টাকা, তেলাপিয়া, পাঙাশ ১৮০ থেকে ২০০ টাকা, কই মাছ ২০০ থেকে ২৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মাছ বিক্রেতা মনিরুল বলেন, সরবরাহ বেশি থাকলে দাম কমে। ইলিশ ধরা ও বিক্রি করা নিষিদ্ধ থাকায়, অন্য মাছের দাম বেড়েছে।

এদিকে সপ্তাহ ব্যবধানে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৪০ থেকে ৫০ টাকায় এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৪৫ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

প্রতি কেজি খোলা চিনি ৯৫ টাকায়, প্যাকেট চিনি ১০০ টাকায় এবং লাল চিনি ১০৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি দেশি মসুরের ডাল ১৪০ টাকা ও ভারতীয় মসুরের ডাল ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এ সপ্তাহে প্রতি ডজন ফার্মের মুরগির ডিম বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকায়, হাঁসের ডিম ১৯০ থেকে ১৯৫ টাকা ও দেশি মুরগির ডিম ২১০ থেকে ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগির দাম ১৮০ টাকা, লেয়ার মুরগি ২৯০ টাকা এবং সোনালি মুরগির দাম ৩১০ থেকে ৩২০ টাকা। বাজারে ৭০০ টাকা কেজি গরুর মাংস এবং ৯০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে খাসির মাংস।

ক্ষোভ প্রকাশ করে ক্রেতা ফারিয়া পারভিন বলেন, বাজারে সবকিছুর দাম বেড়েই চলছে। এমন চলতে থাকলে কয়েক দিন পর না খেয়ে থাকতে হবে।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments

ABUL HOSAIN on BMTF Job Circular 2022